• E-paper
  • English Version
  • বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪:৩৪ পূর্বাহ্ন

কোম্পানীগঞ্জের মন্দিরে হামলা ও সহিংসতায় আসামী ৬ সাংবাদিক

প্রজিত সুহাস চন্দ, নোয়াখালী
  • আপডেটের সময় বুধবার ২০ অক্টোবর, ২০২১

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চরহাজারীতে হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দিরে হামলা ও লুটপাটের অভিযোগ এনে নোয়াখালী আদালতে মামলার আবেদন করা হয়েছে। মামলায় বাদী হয়েছেন বসুরহাট পৌর মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার সমর্থক ইকবাল হোসেন।

মামলার আরজিতে বাদী বলেন, তিনি আব্দুল কাদের মির্জা এর অনুমতিক্রমে এই মামলার আবেদন করেছেন। মামলায় ৪৯ জনকে আসামী করা হয়েছে। এতে আসামির তালিকায় রয়েছেন কোম্পানীগঞ্জে দায়িত্বরত ৫ সাংবাদিক ও একটি পত্রিকার সম্পাদক। তারা হলেন, প্রেসক্লাব কোম্পানীগঞ্জের সভাপতি হাসান ইমাম রাসেল, সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন রনি, রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন মজনু, সদস্য আমির হোসেন, নোয়াখালী প্রতিদিন প্রতিনিধি আবু নাসের ও নোয়াখালী প্রতিদিন এর সম্পাদক রফিকুল আনোয়ার। মামলায় আসামি করা হয়েছে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন লোককেও। আসামির তালিকায় রয়েছেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সদস্য সহ কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের সদস্য সহ ঢাকার বিভিন্ন ব্যবসায়ীকে। এতে আসামি করা হয়েছে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির নবগঠিত আহব্বায়ক কমিটির সভাপতি সহ অন্যান্য সদস্যদের। মামলার প্রধান আসামি মেট্রো গ্রুপের চেয়ারম্যান ফখরুল ইসলাম ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে বলে জানা গেছে।
আরো এক আসামি জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদল দলিয় ক্রোন্দলের কারনে হামলায় পঙ্গুত্ব বরণ করে গত ৫ মাস ধরে ঢাকাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন।

প্রকৃত ঘটনা সম্পর্কে বিভিন্ন মানুষের সাথে কথা বলে জানা যায়, দূর্গা পূজার দশমীর দিনে দেবী বিসর্জন দিতে নেয়ার পথে কিছু দুর্বৃত্তরা হঠাৎ গাড়ীতে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে পালিয়ে যায় এরপর প্রসাসনের কঠোর নিরাপত্তায় বিসর্জন সম্পন্ন হয়। অপরদিকে বসুর হাট বাজারে তৌহিদী জনতার বেনারে একটি মিছিল বের করার চেষ্টা করলে পৌর মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা তার সমর্থকদের সঙ্গে নিয়ে কোন ধরনের অপ্রিতিকর ঘটনা ছাড়া তাদের মিছিল করতে নিষেধ করলে তারা মিছিল না করে ফিরে যায় ।


এই ক্যাটাগরিতে আরো খবর