• E-paper
  • English Version
  • বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:৪১ পূর্বাহ্ন

মঠবাড়িয়ায় নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগে থানায় মামলা

এইচ.এম. আকরামুল ইসলাম (মঠবাড়িয়া) পিরোজপুর
  • আপডেটের সময় রবিবার ২৪ অক্টোবর, ২০২১
প্রতীকী ছবি

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় চিকিৎসকের অবহেলায় নবজাতকের মৃত্যু অভিযোগে মামলা হয়েছে। মৃত নবজাতকের পিতা শাহিন মিয়া বাদী হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার চৌধুরী ফাতিমা কবিরকে প্রধান ও অজ্ঞাত ডাক্তার ও নার্সকে আসামী করে শুক্রবার রাতে মঠবাড়িয়া থানায় এ মামলাটি করেন। শাহিন মিয়া উপজেলার চরকগাছিয়া গ্রামের মৃত হানিফ মিয়ার ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, শাহিন মিয়ার স্ত্রী সনিয়া আক্তার (২০) কে পৌর শহরের চৌধুরী ফাতিমা কবিরের গয়ালীপাড়ায় ব্যক্তিগত চেম্বারে দীর্ঘদিন ধরে গর্ভবতী অবস্থায় চিকিৎসা নিয়ে আসছিল। শুক্রবার সকাল দশটার দিকে প্রসব বেদনা শুরু হলে স্বজনরা তাকে ওই চেম্বারে নিয়ে আসেন। এসময় তার (চৌধুরী ফাতিমা কবির) পরামর্শে বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা করান। শেষে তার কথিত ক্লিনিকে অপরেশন থিয়েটার না থাকা সত্বেও অতিরিক্ত অর্থ লাভের আশায় ভর্তি করান। সেখানে তিনি তার সহযোগী ডাক্তার ও নার্সদের নিয়ে প্রায় দশ ঘন্টা স্বাভাবিক ডেলিভারির জন্য বিভিন্ন ঔষধ ও ইনজেকশন পুস করে কালক্ষেপণ করেন। এতে ওই প্রসূতির অবস্থার অবনতি ঘটলে অন্য ক্লিনিকে ভর্তি করানোর পরামর্শ দেন। পরবর্তীতে প্রসূতিকে পার্শবর্তী একটি ক্লিনিকে নিয়ে গেলে কর্ত্যরত চিকিৎসক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডাক্তার রাজু চন্দ্র সরকার সিজার করেন। নবজাতকের শরীরের বিভিন্ন স্থানে থেতলানো পায়ের হাড় ভাঙ্গা অবস্থায় মূমুর্ষূ ছেলে শিশু জন্ম দেয়। শিশিুটিকে মূমুর্ষূ অবস্থায় চিকিৎসকের পরামর্শে শহরের মা-শিশু ও জেনারেল হাসপাতালে নেয়ার পথে শিশুটি মারা যায়।

অভিযুক্ত চৌধুরী ফাতিমা কবির তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ওই অন্তঃসত্তা মহিলা প্রসব বেদনা নিয়ে আসলে তাকে অন্য ক্লিনিকে যাবার পরামর্শ দেয়া হয়। অর্থিক সংকটের কারণে রোগীর স্বজনরা স্বাভাবিক ডেলিভারির জন্য জোরপূর্বক আমার চেম্বারে অপেক্ষা করতে থাকে।

মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মামলাটি তদন্ত করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।


এই ক্যাটাগরিতে আরো খবর