• E-paper
  • English Version
  • বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:৪৪ পূর্বাহ্ন

রেমিট্যান্স যোদ্ধা হারুনুর রশীদ রঙ্গু জনসেবার মানসে এখন গ্রামে

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি
  • আপডেটের সময় সোমবার ১ নভেম্বর, ২০২১

হারুনুর রশীদ রঙ্গু একজন প্রবাসী ও আজমান প্রাদেশিক কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক। যাকে বলে রেমিট্যান্স যোদ্ধা। কৃষক ঘরের সন্তান। কিন্তু স্বপ্ন ছিলো আকাশ ছোঁয়া। বাস্তবে হয়েছেও তাই। রং কারিগর হয়ে বিদেশ পাড়ি দেন। সংযুক্ত আরব আমিরাতের আজমান শহরে কাজের সফলতার পর হয়ে ওঠেন ব্যবসায়ী। তার সৎ কর্মই তাকে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি এনে দেয়।
গ্রামের ছেলে হারুনুর রশীদ রঙ্গু অর্থবিত্তবৈভবে প্রতিষ্ঠিত হলেও এলাকার মানুষকে ভুলেননি। চুনারুঘাট উপজেলার আহম্মদাবাদ ইউনিয়নের এমন কোন প্রান্ত নেই, যেখানে রঙ্গু মিয়ার অবদান নেই। অসহায় রোগে পীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করেছেন। মহামারী করোনাকালে দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। শুধু গরীব অসহায় মানুষই নয়, সবল সুস্থ মানুষের মাঝেও দান করেছেন অকাতরে।

বিজ্ঞাপন


আওয়ামীলীগ ঘরনার রঙ্গু মিয়া দলের জন্য নিঃস্বার্থে নিরলস দানশীল এক কর্মী। দলের যে কোন অনুষ্টানে অর্থায়ন করেছেন অকৃত্রিম ভাবে। মসজিদ, মন্দির, ওয়াজ-মাহফিল থেকে পূজাঅর্চনায় দলের পক্ষ হয়ে বিলিয়েছেন অর্থসহায়তা।
এবার তিনি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন চেয়েছেন। দল মনোনয়ন দিলে তিনি চেয়ারম্যান পদে জনগনের কাছে ভোট প্রার্থনা করবেন।
তিনি বলেন, জনগন ভোট দিলে তিনি আহম্মদাবাদ ইউনিয়নকে একটি মডেল ইউনিয়ন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চান। শুধু সরকারী বরাদ্দের মখাপেক্ষী না হয়ে জনসাধারনের সহায়তায় নিজের অর্থায়নেও অবহেলিত এলাকায় উন্নয়নের ছোঁয়া যাতে লাগে সেই মনোবাসনা তার রয়েছে। জনকল্যাণকে তিনি ইবাদত মনে করেই নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আহম্মদাবাদ ইউনিয়নে তিনি জনপ্রতিনিধি না হয়েও অনেক উন্নয়ন ও সাহায্য-সহযোগিতা করেছেন। মনের তাগিদেই করেছেন। জনগন তাকে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত করলে তিনি ভোগের বাগাড়ে নিজেকে নিক্ষিপ্ত না করে জনকল্যাণই করে যাওয়ার দ্বীপ্ত প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।


এই ক্যাটাগরিতে আরো খবর