• E-paper
  • English Version
  • বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:৪৬ পূর্বাহ্ন

শেরপুরে এবার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন হায়দার আলী

মইনুল হোসেন প্লাবন, শেরপুর
  • আপডেটের সময় মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর, ২০২১

আগামী ১১ নভেম্বর দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠেয় শেরপুর সদর উপজেলার পাকুড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বর্তমান চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ্ব মো. হায়দার আলী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান হয়েছেন।

মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিনে ওই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে অন্য দুই প্রার্থী মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেওয়ায় তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান
নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন।

মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পাকুড়িয়া ইউপি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো.হামিদুর রহমান। এ নিয়ে টানা দ্বিতীয় দফায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হচ্ছেন তিনি।

জানা যায়, শেরপুর সদর উপজেলার পাকুড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে
বর্তমান চেয়ারম্যান, স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব
হায়দার আলী দলীয় মনোনয়ন পান। পরে সেখানে উপজেলা আওয়ামী লীগের
সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আফজাল হোসেন ও আওয়ামী লীগ ঘরানার মো.
গোলাম মোস্তফা নামে দুইজন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। তবে নির্বাচনের পূর্বেই মো. প্রথমে গোলাম মোস্তফা ও পরে মো. আফজাল হোসেন তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেন।

এতে একমাত্র প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আলহাজ্ব মো.হায়দার আলী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচত হতে যাচ্ছেন।

এ ব্যাপারে সদর উপজেলার পাকুড়িয়া ইউপি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. হামিদুর রহমান জানান, এ ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে দুজন প্রার্থী মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেওয়ায় এখন একমাত্র প্রার্থী হিসেবে হায়দার আলীই চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। আমরা বুধবার প্রতীক বরাদ্দের পর বৃহস্পতিবার তাকে বিনা অফিসিয়ালি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করতে পারি। এখন এ ইউনিয়নে শুধু সাধারণ ও সংরক্ষিত আসনের ইউপি সদস্য পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে আলহাজ্ব মো. হায়দার আলী বলেন, দ্বিতীয় দফায় ইউপি চেয়ারমান নির্বাচিত হওয়ায় দলের সভাপতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হুইপ বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আতিউর রহমান এমপির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। তিনি বলেন, গত পাঁচ বছরে ইউনিয়নের ২৮টি পাকা সড়ক নির্মাণসহ ইউনিয়নটি শতভাগ বয়স্ক ভাতা, বিধবাভাতা ও প্রতিবন্ধী ভাতার আওতায় এনেছি। এবার সবার সহযোগিতায় পাকুড়িয়া ইউনিয়নে আমার অসমাপ্ত কাজগুলো শেষ করতে চাই।

উল্লেখ্য, এর আগে সদর উপজেলার কামারেরচর ইউপি চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর
রহমান হাবিবও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচত হয়েছেন। দুই ইউপিতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচত হওয়ায় এখন সদর উপজেলার ১৪ ইউপির মধ্যে ১২টি ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।


এই ক্যাটাগরিতে আরো খবর