• E-paper
  • English Version
  • শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪৭ অপরাহ্ন

হবিগঞ্জের বৃন্দাবন সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীদের ফুলেল অভ্যর্থনা

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি
  • আপডেটের সময় রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১

শিক্ষা অধিদপ্তরের ১১ দফা নির্দেশনা মেনে করোনা মহামারিতে ৫৪৩ দিন বন্ধ থাকার পর আজ আবারো ক্লাসের জন্য খুললো হবিগঞ্জের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ বৃন্দাবন সরকারি কলেজ।
দীর্ঘ বন্ধের পর প্রথম দিনটিতে কলেজ গেটে দাঁড়িয়ে ফুল দিয়ে শিক্ষার্থীদের অভ্যর্থনা জানান কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ ইলিয়াছ বখত চৌধুরী এবং উপাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মোঃ মাসুদুল হাসান।
এ সময় বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক কর্মকর্তাগণও উপস্থিত ছিলেন। দীর্ঘদিন পর শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে কলেজ ক্যাম্পাস। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পারস্পরিক শুভেচ্ছা বিনিময় এবং দীর্ঘদিন পর সশরীরে ক্লাসে ফিরতে পেরে শিক্ষার্থীদের উচ্ছ্বাস ছিলো চোখে পড়ার মতো। আপাততঃ সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন দু’টি করে ক্লাস পাবেন। এজন্য ক্লাস রুটিন পুনর্গঠন, ক্লাসরুম এবং ক্যাম্পাস ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করে আগেই প্রস্তুত করা হয়েছিলো। কলেজের বিভিন্ন গেটে তাপমাত্রা মেপে এবং স্যানিটাইজ করে শিক্ষার্থীদের কলেজে প্রবেশ করানো হয়। কলেজের বিভিন্ন পয়েন্টে সাবান দিয়ে হাত ধুয়ার ব্যবস্থা, চিকিৎসা কেন্দ্র ও আইসোলেশন কক্ষ প্রস্তুত রাখা হয় এবং সচেতনতামূলক ব্যানার ফেস্টুন দিয়ে সাজানো হয় ক্যাম্পাস। কলেজের অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ, ভিজিলেন্স টিম এবং মনিটরিং কমিটির সদস্যগণ প্রত্যেক ক্লাসরুমে গিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মানা, ব্যাক্তিগত সুরক্ষা এবং পড়াশুনা এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে অনুপ্রেরণামূলক বক্তব্য দিয়েছেন। দীর্ঘদিন পর ক্লাসে ফিরতে পেরে শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ কলেজের সবাই আনন্দিত।

ছবিঃ শিক্ষার্থীদের ফুল দিয়ে বরণ করেন শিক্ষকবৃন্দ।


কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ ইলিয়াছ বখত চৌধুরী জানান, “স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্লাস চালু করার জন্য তারা কর্তৃপক্ষ নির্দেশিত সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন। প্রথম দিনেই শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ছিলো উৎসাহব্যাঞ্জক। তিনি আশা প্রকাশ করেন নির্ধারিত সময়েই সংক্ষিপ্ত সিলেবাস অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের এইচএসসি পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত করা সম্ভব হবে। তিনি কলেজে শিক্ষার পরিবেশ রক্ষায় সংশ্লিষ্ট সকল মহলের সহযোগিতা কামনা করেন।”
এ প্রসঙ্গে কলেজের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. সুভাষ চন্দ্র দেব বলেন “আমরা সকল শিক্ষক আজকের দিনটির জন্য অপেক্ষায় ছিলাম। এতোদিন অনলাইন ক্লাস চললেও সরাসরি শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিতে আনন্দঘন পরিবেশে পাঠদানের বিকল্প হতে পারেনা। আমাদের কলেজে সকল প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে, আজকে যে শুভ সুচনা হলো সেটিতে যদি এই মহামারি আর বিঘ্ন না ঘটায় তাহলে শীঘ্রই আমরা শিক্ষার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবো।”

বিজ্ঞাপন


আজ শিক্ষার্থীদের চোখে মুখে ছিলো আনন্দের ছাপ, তারা বলেন সরাসরি পাঠদান তাদের পাঠের বিষয় বুঝতে এবং পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে সহায়ক হবে। তারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ব্যাপারেও সচেতন বলে জানান।


এই ক্যাটাগরিতে আরো খবর