• E-paper
  • English Version
  • শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৫৭ পূর্বাহ্ন

ভোলায় পরাজিত মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের উপর হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ

আকতারুল ইসলাম আকাশ, ভোলা
  • আপডেটের সময় শুক্রবার ৭ জানুয়ারী, ২০২২

ভোলা সদর উপজেলা ২নং পূর্ব ইলিশা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডে পরাজিত মেম্বার প্রার্থী মো. শাহে আলম সিকদারের উপর (ফুটবল প্রতীক) বিজয়ী প্রার্থী কামাল হোসেন লিটন সিকদারের (মোড়গ প্রার্থী) কর্মী সমর্থকরা হামলা ভাংচুর ও লুটপাট করেছে বলে অভিযোগ করেছে প্রতিপক্ষ।

বৃহস্পতিবার সকালে ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড মুনাফ সিকদার বাড়ি দরজায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় পরাজিত মেম্বার প্রার্থী শাহে আলমসহ অন্তত ৯ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

তাদেরকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পরাজিত মেম্বার প্রার্থীর ভাই মো. কামাল হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে সাতটার দিকে তিনি স্থানীয় কালাম মেম্বার ব্রিজ সংলগ্ন বাজারে বসে চা পান করছেন। এমন সময় স্থানীয় আসাদ মল্লিক তাকে জানান, তাঁর ভাতিজা মো. রুবেলকে রক্তাক্ত অবস্থায় স্থানীয়রা ভোলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছে। খবর পেয়ে তিনি স্থানীয় মুনাফ সিকদার বাড়ি দরজায় গেলে প্রতিপক্ষ গ্রুপের মো. বিল্লাল, ফারুক, এমরান, কামরুল, লিমন, আলাউদ্দিন সিকদার, মাইনুদ্দিন ও শাহাবুদ্দিনসহ ৫ থেকে ১০ জন দেশীয় অস্ত্র ও লাঠিসোঁটা নিয়ে শাহিন ও শাহে আলমের উপর অতর্কিত হামলা চালায়।

একপর্যায়ে হামলাকারীরা শাহে আলমের সমর্থক সংখ্যাগরিষ্ট সুনীলের বাড়িসহ আরও কয়েকটি বাড়িতে হামলা চালায়। অগ্নিসংযোগ করা হয় শাহে আলমের ভাইয়ের একটি দোকানে। লুটপাট চালায় আবু সিদ্দিক নামে এক ব্যবসায়ির মুদি ও সুপারির গুদামঘরে।

তবে এসকল অভিযোগ অস্বীকার করে অভিযুক্ত লিটন জানান, শাহে আলমের কর্মী সমর্থকরা হঠাৎ করে তাঁর কর্মী সমর্থকদের উপর হামলা চালায় এবং বেশকিছু ঘরবাড়ি ভাংচুর করে।

ভোলা সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি এনায়েত হোসেন জানান, তিনি ঘটনাটি শুনে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে পাঠিয়েছেন৷ তবে এবিষয়ে এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ বা মামলা করা হয়নি৷ অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।


এই ক্যাটাগরিতে আরো খবর