খুলনায় ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু !

নুর আলম, খুলনা
  • আপডেটের সময় সোমবার ২৪ জানুয়ারী, ২০২২

খুলনা মহানগরীর ময়লাপোতা মোড়ে অবস্থিত খানজাহান আলী হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় ইলিয়াজ ফকির নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। নিহত ইলিয়াজ ফকির নগরীর গল্লামারী রাইসা ক্লিনিকের পাশে ফলের ব্যবসা করতেন বলে জানা গে‌ছে।

মৃত্যুর পরপরই হাসপাতালের পরিচালক ও চিকিৎসকরা পালিয়ে যান। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়ানোর জন্য পুলিশ হাসপাতালটি ঘিরে রাখে।

খুলনার দাকোপ উপজেলার জয়নগর গ্রামের হাবিবুর রহমান ফকিরের ছেলে রোগী ইলিয়াজ ফকির। নিহতের স্ত্রী পারভীন বলেন, ৫ মাস আগে ইলিয়াজ ফকিরের হার্নিয়ার সমস্যা হয়। সে সময় তিনি ওই এলাকার গ্রাম্য চিকিৎসককে দেখাতে থাকে। সাথে ঔষধ গ্রহনও করে। তাতে সমাধান না হওয়ায় তিনি খুলনা মহানগরীর মোহাম্মাদ নগরের ফার্মাসিস্ট মনির সাথে কথা বলেন। তখন ইলিয়াজকে খানজাহান আলী হাসপাতালে গিয়ে অপারেশন করার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়।

সে অনুযায়ী গত রবিবার (২৩ জানুয়ারি) দুপুর ১টার দিকে বাড়ি থেকে হাসপাতালে আনা হয় ইলিয়াজকে। বিকেল ৪টা ৫৫ মিনিটের দিকে তাকে অপারেশন থিয়েটারে নেওয়া হয়। হাসপাতালের পরিচালক ডা. মোস্তফা কামাল, ডা. মোর্শেদ ও ইন্টার্ণী ডা. মোহন রোগীকে অপারেশনের জন্য কক্ষে প্রবেশ করেন। অস্ত্রপ্রচার সফল হয়েছে বলে চিকিৎসকরা রোগীর স্বজনদের জানান। এর কিছুক্ষণ পর ইলিয়াজ ফকিরের এক আত্মীয় গিয়ে দেখে তার খিচুনী উঠেছে। রোগীর অবস্থা খারাপ দেখে নিহতের পরিবারের এক সদস্যকে ডেকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে ওই হাসপাতালের এক চিকিৎসক সরে পড়েন।

নিহতের বেয়াই মোস্তাফিজুর রহমান জানান, হার্নিয়া অপারেশনে কোন রোগী মারা যায় না। রোগীর কথা জিজ্ঞাসা করা মাত্রই হাসপাতালের পরিচালক ও অন্যান্য চিকিৎসকরা একে একে সরে পড়তে থাকেন। অপারেশন থিয়েটারের মধ্যে ইলিয়াজকে মৃত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে পরিবারের সদস্যরা সেখান থেকে বের করে নিয়ে আসে।

এখানে প্রায় এ রকমের দুর্ঘটনা ঘটে, যা বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হয় তারপরও কেন মানুষ এখানে আসে তা বোধগম্য নয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে খানজাহান আলী হাসপাতালের এক প্রতিবেশী জানান।

এ ঘটনায় পুলিশ হাসপাতালের হিসাব রক্ষক ও একজন সেবিকাকে আটক করেছে। স্বজনদের কান্নায় হাসপাতালের পরিবেশ ভারী হয়ে ওঠে। রাত ৯ টা ১৬ মিনিটে নিহত ইলিয়াজ ফকিরের লাশ ময়না তদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে পু‌লিশ।

এদিকে খুলনা থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মো: আবু হানিফ জানান, ইলিয়াজ ফকিরের মৃত্যুর পর আত্মীয় স্বজনরা হাসপাতালের দু’জন কর্মচারীকে আটক রেখেছিল। নিরাপত্তার স্বার্থে তাদেরকে থানায় নেওয়া হয়েছে এবং এ ঘটনা সম্পর্কে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। অপারেশন থিয়েটারের মধ্য থেকে আবু নাসের হাসপাতালের ডেপুটি ডিরেক্টর ডা. মোর্শেদের একটি নির্দেশনাপত্র উদ্ধার করা হয়।

এদিকে ভূল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত ও দায়ী‌দের শাস্তির দাবি করছেন সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন।


এই ক্যাটাগরিতে আরো খবর