বদলগাছীতে অবৈধভাবে সরকারি লেক ভরাট, পলিটেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ নির্মাণের গুঞ্জন

রহমতউল্লাহ, নওগাঁ
  • আপডেটের সময় শুক্রবার ৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার “বদলগাছী-মাতাজি সড়কের” জিয়ল মৌজায় অবৈধভাবে সরকারি লেক ভরাটের বিষয়টি নিয়ে এলাকায় নানা গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে।

এলাকাবাসী বলছেন গোপনীয়তা রক্ষা করে এখানে প্রস্তাবিত সরকারি পলিটেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ নির্মানের পূর্ব প্রস্তুতি হিসাবে অবৈধভাবে সরকারি লেক ভরাট করা হচ্ছে।

এলাকাবাসী জানায় ২০১১-২০১২ অর্থ বছরে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ১ কোটির অধিক টাকা বরাদ্দ দিয়ে বদলগাছী হতে মাতাজিহাট পর্যন্ত সড়কের দু’পাশে লেক খনন করে।

বলা হয়েছিল পর্যটন আকারে লেকের দু’পাশে বনায়ন তৈরীসহ বসার জায়গা নির্মাণ করা হবে। এখন পর্যন্ত সেটা বাস্তবায়ন না হলেও লেক অবৈধভাবে ভরাট করছে উপজেলার ক্ষমতাধর একটি চক্র।

তথ্য সংগ্রহকালে লেকের পাশে কাগজের টোকেন হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে শামিম নামে একজন। জানতে চাইলে
শামিম জানায় তার বাড়ী চাকরাইল গ্রামে। সে ঐ গ্রামের সায়েম চৌধুরীর বর্গাদার। সে মাটি বহনকারী ট্রাকের হিসাব-নিকাশের দায়িত্বে রয়েছে।

এই লেক ভরাট করছে সায়েম চৌধুরী। শামিম ও জিয়ল বালু পাড়ার তোজাম্মেল, মাঠে কর্মরত কৃষক খালেক, সুনিলসহ গ্রামবাসী বলেন, এম পি ছলিম উদ্দিন তরফদার, সায়েম চৌধুরী ও বদলগাছী ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম মন্ডল সম্মিলিত ভাবে এখানে ৬ বিঘা জমি কিনেছে এখানে সরকারি ভাবে পলিটেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ নির্মান করবে তাইতো আমরা শুনেছি।

এ বিষয়ে সায়েম চৌধুরীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বললে সম্মিলিতভাবে জমি ক্রয় এবং স্কুল কলেজ নির্মানের বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, লেক আমার জমির উপর খনন করেছে। আমার এরিয়া আমি ভরাট করছি। প্রশাসনের অনুমতি নিয়েছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি জানান, সেটা প্রয়োজন বোধ করিনি।

বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বদলগাছী’র সহকারী প্রকৌশলী হারুন অর রশিদ বলেন, সাবেক এম.পি ড. আকরাম হোসেন চৌধুরী বদলগাছী-মাতাজি সড়কের দু’পাশে লেক খননের প্রকল্প নিয়েছিলেন। সেটা খনন করে দেওয়া হয়েছে। লেক কে বা কাহারা অবৈধভাবে ভরাট করছে সেটা দেখার দায়িত্ব উপজেলা প্রশাসনের।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এ.টি.এম জিল্লুর রহমান বলেন, আমি শুনেছি কিন্তু পলিটেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ কে প্রস্তাব করেছে, কোন জায়গায় কিভাবে করছে তা আমি কিছুই জানিনা।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলপনা ইয়াসমিন বলেন, প্রস্তাবিত পলিটেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের বিষয়টি আমি অবগত নই। লেক ভরাট করছে তাও আমি জানিনা। লেকের জায়গা মালিকানা না সরকারি তা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে বদলগাছী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শামসুল আলম খান বলেন, লেক ভরাট করছে তারা কি সেখানে পলিটেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ নির্মানের বরাদ্দ পেয়েছে। সেখানে এই প্রতিষ্ঠান নির্মাণ হলে উপজেলাবাসী এর সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবে। আমি সাবেক জেলা প্রশাসক মহোদয়ের কাছে জেনেছি এম,পি সাহেব জিয়ল মৌজায়
পলিটেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ নির্মানের জন্য ডিও লেটার দিয়েছে। আমি ঐ স্থান পরিবর্তন করার জন্য মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী বরাবর আবেদন করেছি। সেই সাথে উপজেলা বাসীর সুবিধার্থে আমি আমার ইট ভাটার জায়গা দিতে চেয়েছি।


এই ক্যাটাগরিতে আরো খবর