ভালোবাসা দিবস আমাদের সংস্কৃতির নয়

তাহমিনা বেগম গিনি
  • আপডেটের সময় সোমবার ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

প্রকৃতির নিয়মে গ্রীষ্ম, বর্ষা, ফাল্গুন চৈত্র আসবে। সাথে নিয়ে আসে বাঙ্গালীর সাংস্কৃতি ১লা, বৈশাখ, ১লা অগ্রহায়ন, বসন্ত বরনের মত উৎসব। কিন্তু ভালোবাসা দিবস আমাদের সংস্কৃতির নয়। অনেক বিজাতীয় সংস্কৃতিরমত এটি সমাজে খুব ভালভাবে জেঁকে বসেছে।মহামারীময় ভালোবাসা দিবস আজ। গত দু’বছর তেমন পালন হয়নি। এবার হয়তো হবে। ভাববো কি একবার অনেক লোনাজলে এ পৃথিবীর মাটি ভিজছে। অনেকে মাটির ঘরে, আগুনে, পানিতে হারিয়ে গিয়েছেন। কত গৃহে এখনো অমাবস্যা। ভালবাসার রঙ নাকি হয় লাল। একবার ভাবুন কদিন আগে সব হারিয়ে শুধু সাদা রঙ্গের পাচঁটি বধুর কথা। তাদের মার কথা। সারাজীবনের মত ওরা ভালবাসা হারিয়েছে। এত মৃত্য, এত, অশ্রু, এতপৃথিবীর ক্রোধের মাঝে কোথায় ভালবাসা? আসুন, পৃথিবীর সব প্রানী, সব সৃষ্টি, অসহায়, অমানবিকতাকে ভালবাসি। মা, বাবা পরিবারকে ভালবাসুন।বৃদ্ধাশ্রম থাকলে কিসের ভালবাসা দিবস। জীবন শুধু তুমি আমি নয়।তারপরও গোলাপ বিনিময় হবে,কোটি বার উচ্চারিত হবে,তোমায় ভালবাসি। একান্তে চার দেয়ালে কত ঘটনা ঘটবে। হয়তো অনেক কিছুই জানা হবেনা। আজ রবি ঠাকুরের কতগুলি কথা খুব মনে পড়ছে;
“ভালবাসা অর্থ আত্মসমর্পন নহে।ভালবাসা অর্থ নিজের যা কিছু ভাল তাহাই সমর্পন করা।যাহাকে তুমি ভালবাস তাহাকে ফুলদাও- কাঁটা দিওনা। তোমার হৃদয় সরোবরপ পদ্মদাও, পঙ্ক দিওনা। প্রেম হৃদয়ের সারভাগ মাত্র। হৃদয় মন্থন করিয়া যে অমৃতটুকু তাহাই। ভালবাসা অর্থ ভাল– বাসা অর্থাৎ ভাল বাসস্থান দেওয়া। অন্যকে মনের সর্বাপেক্ষা ভালজায়গায় স্থাপন করা।””
আর আমার কথায় যদি বলি, একদিনের জন্য কিসের ভালবাসা। কবিতায়-
অন্তর সরবোরে নিত্য প্রেমেরঢেউ
প্রতিদিনই ভালবাসার মাখামাখি
জানেনা তো কেউ।
আজকের এই দিবসে, ছোট বড় সবাইকে বসন্ত ও ভালবাসা দিবসের শুভেচ্ছা। আশে পাশের সবাইকে স্বার্থহীন ভাবে ভালবাসুন।

লেখক; সভাপতি, নজরুল একাডেমি, হবিগঞ্জ।


এই ক্যাটাগরিতে আরো খবর